জরায়ু ক্যান্সার এর কারণ এবং প্রতিকার

Spread the love

জরায়ু ক্যান্সার এর কারণ এবং প্রতিকার

জরায়ুমুখ ক্যান্সার এমনই একটি মারাত্মক প্রাণঘাতী রোগ। অনেক নারীই এই রোগের চিকিৎসা করান না। এবং সবচাইতে ভয়াবহ ব্যাপার হলো অনেকেই শুধুমাত্র লজ্জা পাবার কারণে এই রোগের লক্ষণ দেখা দিলেও তা নিয়ে কোনো বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের শরণাপন্ন হন না। আমাদের দেশে এই রোগটির প্রকোপ বাড়ছে প্রতিনিয়ত। অথচ সামান্য সতর্কতা এবং সঠিক শিক্ষা নারীদের এই প্রাণঘাতী রোগের কবল থেকে মুক্তি দিতে পারে খুব সহজেই।জরায়ুর ক্যান্সার দেখা দেয় যখন জরায়ুর স্বাস্থ্যকর কোষগুলি তাদের ডিএনএতে পরিবর্তন বা মিউটেশন বিকাশ করে। জরায়ুর ক্যান্সারের প্রায় 99% ক্ষেত্রে যৌন সংক্রমণ, উচ্চ-ঝুঁকির সাথে মানব পেপিলোমা ভাইরাস (এইচপিভি) সংক্রমণের সাথে যুক্ত।

কারণ:

১) হিউম্যান প্যাপিলোমা ভাইরাস বা এইচপিভি এই জরায়ুমুখ ক্যান্সারের জন্য দায়ী থাকে প্রায় ৯৯%। এই ভাইরাসটি সাধারণত পুরুষের মাধ্যমে নারীদেহে প্রবেশ করে।

২) ধূমপান, তামাক পাতা ব্যবহার, দীর্ঘমেয়াদী জন্মনিয়ন্ত্রণ পিল ও অনিয়ন্ত্রিত সন্তান ধারনের কারণে জরায়ুমুখ ক্যান্সার হয়।

৩) অপরিষ্কার থাকা ও মাসিকের সময় সঠিকভাবে নিজের যত্ন না নেয়ার কারণে হয়ে থাকে এই মারাত্মক রোগটি

৪) অপুষ্টি, দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম থাকলে সামান্য ইনফেকশন থেকেও এই রোগটি হতে পারে।

লক্ষণ:

১) মাসিকের পাশাপাশি অনিয়মিত রক্তক্ষরণ যেটাকে অনেকেই অনিয়মিত মাসিক হিসেবে ভুল করে থাকেন।

২) তলপেটে প্রচন্ড ব্যথা হওয়া।early-pregnancy-cramps

৩) সাদা ও ঘন অথবা বাদামি রঙের দুর্গন্ধযুক্ত তরল স্রাব নিঃসরণ।

৪) কোনো ধরণের মারাত্মক ইনফেকশন দেখা দেয়া।

৫) প্রতিবার যৌন মিলনের পর রক্তপাত হওয়া।

৬) বয়স্ক মহিলাদের মাসিক বন্ধ হয়ে যাওয়ার পরও রক্তক্ষরণ হওয়া

রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী সঠিক খাবার

জরায়ু ক্যান্সার এর কারণ এবং প্রতিকার
জরায়ু ক্যান্সার এর কারণ এবং প্রতিকার

প্রতিরোধ:

১) ৯ বছর বয়সের পর সকল মেয়েদের এইচপিভি (HPV) টিকা নেয়া উচিত। তবে, অ্যামেরিকান ক্যান্সার সোসাইটির জার্নাল অনুযায়ী, এই টিকা ৯-১৫ বছর বয়সের মধ্যে নিয়ে নেয়া ভালো। ৩ টি ডোজের এই টিকা জরায়ুমুখ ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। যদি ১৫ বছরের পর এই টিকা নেয়া হয় তাহলে প্রথমে একজন বিশেষজ্ঞের শরণাপন্ন হয়ে পরীক্ষা করিয়ে টিকা নেয়া উচিত। ১৯-২৫ বছরের নারীদের বিশেষ সতর্কতার প্রয়োজন রয়েছে।cervical-cancer1

২) যেহেতু এই রোগের জন্য দায়ী ভাইরাসটি পুরুষের মাধ্যমে নারীদেহে প্রবেশ করে তাই যৌন মিলনের সময় সতর্ক থাকুন। এবং কনডম ব্যবহার করুন।

৩) ধূমপান ও তামাক জাতীয় দ্রব্য থেকে দূরে থাকুন।

৪) সব সময় পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকার চেষ্টা করুন এবং মাসিক চলাকালীন সময়ে বিশেষ যত্ন নিন।

৫) পুষ্টিকর খাবার গ্রহন করুন এবং দেহের ইমিউন সিস্টেম উন্নত করুন।

তথ্যসূত্রঃ অ্যামেরিকান ক্যান্সার সোসাইটি

জরায়ু ক্যান্সার এর কারণ এবং প্রতিকার জরায়ু ক্যান্সার এর কারণ এবং প্রতিকার

Leave a Reply

Your email address will not be published.