ইসির বিরুদ্ধে মামলা হওয়া উচিত- ফখরুল 22

Spread the love

ইসির বিরুদ্ধে মামলা হওয়া উচিত- ফখরুল

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, এই সরকারের নির্বাচন কমিশন চরমভাবে ব্যর্থ। কমিশনের ব্যর্থতার জন্য তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা উচিত এবং বিচার হওয়া উচিত। কারণ তারা নির্বাচন ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে দিয়েছে। কমিশনের বিরুদ্ধে মামলার পরিকল্পনা রয়েছে কি না- জানতে চাইলে ফখরুল বলেন, আমরা (বিএনপি) তাদের বিরুদ্ধে মামলা করব কি না- এটা পরে সিদ্ধান্ত নেব। কারণ এই দেশে মামলা করে কোনো লাভ হয় না। কারণ বিচার বিভাগও এখন আর স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারে না।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ছবি
মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ছবি

শুক্রবার বেলা পৌনে তিনটায় ঠাকুরগাঁও শহরের কালীবাড়ি এলাকায় নিজ বাসভবনে মতবিনিময়কালে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন। এ সময় ইসি গঠন প্রক্রিয়া নিয়ে বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘ইসি গঠনে সার্চ কমিটি গঠনের ব্যাপারে আমাদের কোনো আগ্রহ নেই। কারণ, এসবের কোনো মূল্য নেই। এসব অর্থহীন। যাকে সার্চ কমিটির প্রধান (বিচারপতি ওবায়দুল হাসান) করা হয়েছে, তাঁর বাবা ছিলেন আওয়ামী লীগ মনোনীত গণপরিষদ সদস্য। তাঁর ছোট ভাই ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সচিব। কমিটির আরেক সদস্য ২০১৮ সালে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়েছিলেন। তাঁদের কাছে তো নিরপেক্ষতা আশা করার কোনো কারণ নেই।’

বিএনপি লোগো
বিএনপি লোগো

 আগামী জাতীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণ নিয়ে বিএনপি কী ভাবছে—প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘বর্তমান সরকার থাকলে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার প্রশ্নই উঠতে পারে না। ২০১৪ ও ২০১৮ সালের জাতীয় নির্বাচন ও স্থানীয় সরকার নির্বাচন হয়ে গেল। কোনোটাই নির্বাচন হয়নি। আওয়ামী লীগ যত দিন ক্ষমতায় থাকবে, তত দিন তারা নির্বাচন কমিশনকে দখলে রাখবে। তারা তাদের মতো করে নির্বাচন অনুষ্ঠানের চেষ্টা করবে।’ মির্জা ফখরুল বলেন, চলমান স্থানীয় সরকার নির্বাচনে গোলাগুলি হয়েছে। শতাধিক মানুষ নিহত হয়েছেন। এটাও কোনো নির্বাচনই হয়নি। নির্বাচনব্যবস্থার ওপর থেকে মানুষ ও রাজনৈতিক দলগুলোর আস্থা চলে গেছে। সুতরাং নির্বাচন কমিশন ও সার্চ কমিটি এখানে কোনো ইস্যু নয়। ইস্যু হলো নির্বাচনকালীন কোন সরকার ক্ষমতায় থাকবে? এটা যদি দলীয় সরকার থাকে, বিশেষ করে আওয়ামী লীগ সরকার যদি থাকে, তবে কখনোই অবাধ, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন হবে না। আওয়ামী লীগের সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল বলেন, আওয়ামী লীগের ইচ্ছা নির্বাচনব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণ করে সারা জীবন ক্ষমতায় থাকবে। সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে। একটি নিরপেক্ষ সরকার গঠন করতে হবে। নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নিরপেক্ষ ইসির পরিচালনায় নির্বাচন দিতে হবে। তখনই এ সমস্যার সমাধান হবে। সব দলের মতামত উপেক্ষা করে নির্বাচন কমিশন গঠন করলে, দেশের জনগণ কখনোই তা মেনে নেবে না। কারণ, বাংলাদেশের মানুষ সংগ্রাম করে, যুদ্ধ করে বারবার তাদের গণতান্ত্রিক অধিকার ফিরিয়ে এনেছে। এ অধিকারের জন্য মানুষ প্রাণও দিয়েছে।

ইসির বিরুদ্ধে মামলা হওয়া উচিত- ফখরুল
ইসির বিরুদ্ধে মামলা হওয়া উচিত- ফখরুল

সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে ঠাকুরগাঁও জেলা বিএনপির সভাপতি তৈমুর রহমান, সহসভাপতি আবু তাহের, নুর ই শাহাদৎ, ইউনুস আলী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পয়গাম আলী, আনসারুল হক, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি মো. কায়েসসহ বিএনপির বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

ইসির বিরুদ্ধে মামলা হওয়া উচিত- ফখরুল ইসির বিরুদ্ধে মামলা হওয়া উচিত- ফখরুল ইসির বিরুদ্ধে মামলা হওয়া উচিত- ফখরুল ইসির বিরুদ্ধে মামলা হওয়া উচিত- ফখরুল

Related Posts

কত টাকা পাবে মুস্তাফিজ এবারের আইপিএল খেলে

Spread the love

Spread the loveTweetপুরো আইপিএল না খেলতে পারায় প্রায় ৭২ লাখ রুপির মধ্যে মুস্তাফিজ পাবেন মাত্র ১২ লাখ টাকা!! মুস্তাফিজুর রহমানকে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) পুরো মৌসুম খেলতে দেয়নি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। আসন্ন জিম্বাবুয়ে সিরিজে ২ মে দেশে ফিরবেন কাটার মাস্টার। অনেক ক্রিকেট ভক্তের মনে প্রশ্ন, ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের অর্ধেক খেলে কত টাকা আয় করবেন ফিজ। এই খেলোয়াড় যত টাকা আয় করুক না কেন, পুরো আইপিএল মৌসুম খেলতে পারবেন না বলে তিনি বিশাল আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হবেন। এবারের আইপিএলে চেন্নাই সুপার কিংস তাকে দলে আনে বেস প্রাইস ২ কোটি টাকায়। চলতি সপ্তদশ আসরে বাংলাদেশের একমাত্র প্রতিনিধি তিনি। চেন্নাইয়ের জার্সিতে দারুণ ফর্মে আছেন তিনি। ৫ ম্যাচে ১০ উইকেট নিয়েছেন। সর্বোচ্চ উইকেট শিকারীর তালিকায় তিনি রয়েছেন ৪ নম্বরে। এমন দুর্দান্ত পারফরম্যান্সের পরও বাঁহাতি এ টাইগার পেসারকে ফিরতে হচ্ছে দেশে। আগামী ১ মে পর্যন্ত তাকে আইপিএলে খেলার অনুমতি দিয়েছে বিসিবি। তাকে দ্রুত ফেরানোর উদ্দেশ্যে হচ্ছে ঘরের মাঠে আসন্ন জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টি-২০ সিরিজ। পুরো মৌসুমে না খেলায় স্বাভাবিকভাবেই নিলামের পুরো টাকা পাবেন না টাইগার পেসার। আইপিএলের পারিশ্রমিকের নিয়ম অনুযায়ী গ্রুপ পর্বের ১৪টি ম্যাচ খেলার মতো অবস্থায় থাকলে পুরো টাকাটাই পেতেন তিনি। আর ম্যাচ কম খেললে আনুপাতিক হারে পাবেন পারিশ্রমিক। সেই হারে প্রতি ম্যাচে মুস্তাফিজ ১৮ লাখ ৭২ হাজার টাকার কিছু বেশি পারিশ্রমিক পাচ্ছেন। একই সঙ্গে দৈনিক ভাতা, ব্যক্তিগত ম্যাচসেরার পুরস্কার, উইনিং বোনাসসহ আইপিএলে আরো অর্থ আয়ের উৎস রয়েছে। গ্রুপপর্বের শেষ চার ম্যাচ খেলতে না পারায় এক কোটি ২৮ লাখের কিছু বেশি অর্থ পাবেন দ্য ফিজ। অর্থ্যাৎ এবারের আইপিএল থেকে ভিত্তিমূল্য ২ কোটি রুপি থেকে প্রায় ৭২ লাখ রুপি পাবেন না মুস্তাফিজ। এ সময়টায় জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজের ৫ ম্যাচ খেললে তার আয় হবে ১২ লাখ ৫০ হাজার টাকা, যা আইপিএলের এক ম্যাচের চেয়েও অনেক কম।

Read more

যাকাত বন্টনের নির্ধারিত ৮টি খাত

Spread the love

Spread the loveTweetযাকাত বন্টনের নির্ধারিত ৮টি খাত যাকাত বন্টনের নির্ধারিত যে ৮টি খাত রয়েছে সে গুলোর বিস্তারিত :- ফকির- ফকির হলো সেই ব্যক্তি যার নিসাব পরিমাণ সম্পদ নেই। যে ব্যক্তি রিক্তহস্ত, অভাব মেটানোর যোগ্য সম্পদ নেই, ভিক্ষুক হোক বা না হোক, এরাই ফকির। যেসব স্বল্প সামর্থ্যের দরিদ্র মুসলমান যথাসাধ্য চেষ্ট করা সত্ত্বেও বা দৈহিক অক্ষমতাহেতু প্রাত্যহিক ন্যায়সঙ্গত প্রয়োজনটুকু মেটাতে পারে না, তারাই ফকির। কারো মতে যার কাছে একবেলা বা একদিনের খাবার আছে সে ফকীর। মিসকীন – মিসকীন সেই ব্যক্তি যার কিছুই নেই, যার কাছে একবেলা খাবারও নেই। যেসব লোকের অবস্থা এমন খারাপ যে, পরের নিকট সওয়াল করতে বাধ্য হয়, নিজের পেটের আহারও যারা যোগাতে পারে না, তারা মিসকীন । মিসকীন হলো যার কিছুই নেই, সুতরাং যার কাছে প্রয়োজনের অতিরিক্ত নিসাব পরিমাণ অর্থ সম্পদ নেই, তাকে যাকাত দেয়া যাবে এবং সেও নিতে পারবে। তবে লক্ষ্য রাখতে হবে, ফকির বা মিসকীন যাকেই জাকাত দেয়া হবে, সে যেন মুসলমান হয়। আমেলীন- ইসলামি সরকারের পক্ষে লোকদের কাছ থেকে যাকাত, উসর প্রভৃতি আদায় করে বায়তুল মালে জমা প্রদান, সংরক্ষণ ও বন্টনের কার্যে নিয়োজিত ব্যক্তিবর্গ। এদের পারিশ্রমিক যাকাতের খাত থেকেই আদায় করা যাবে। কোরআনে বর্ণিত আটটি খাতের মধ্যে এ একটি খাতই এমন, যেখানে সংগৃহীত যাকাতের অর্থ থেকেই পারিশ্রমিক দেয়া হয়। এ খাতের বৈশিষ্ট্য হলো এতে ফকীর বা মিসকীন হওয়া শর্ত নয়। পক্ষান্তরে, অবশিষ্ট ৫টি খাতে দরিদ্র ও অভাবগ্রস্থ দূরীকরণে যাকাত আদায় শর্ত।চিত্ত জয় করার জন্য- নতুন মুসলিম যার ঈমান এখনো পরিপক্ক হয়নি অথবা ইসলাম গ্রহণ করতে ইচ্ছুক অমুসলিম। যাদের চিত্ত (দ্বীন ইসলামের প্রতি আকর্ষণ করে) আকর্ষণ ও উৎসাহিত করণ আবশ্যকীয় মনে করে যাকাত দান করা হয়, যাতে তাদের ঈমান পরিপক্ক হয়। এ খাতের আওতায় দুঃস্থ নওমুসলিম ব্যক্তিদের যাকাত প্রদানের ব্যাপারে ফকিহরা অভিমত প্রদান করেছেন। ক্রীতদাস/বন্দী মুক্তি- এ খাতে ক্রীতদাস-দাসী/বন্দী মুক্তির জন্য যাকাতের অর্থ ব্যয় করা যাবে। অন্যায়ভাবে কোনো নিঃস্ব ও অসহায় ব্যক্তি বন্দী হলে তাকেও মুক্ত করার জন্য যাকাতের অর্থ ব্যয় করা যাবে। বর্তমান সময়ে ক্রীতদাস প্রথা বিলুপ্ত হওয়ায় এই খাতটি আর বিবেচ্য নয়। ঋণগ্রস্থ- এ ধরনের ব্যক্তিকে তার ঋণ মুক্তির জন্য যাকাত দেয়ার শর্ত হচ্ছে- সেই ঋণগ্রস্থের কাছে ঋণ পরিশোধ পরিমাণ সম্পদ না থাকা। আবার কোনো ইমাম এ শর্তারোপও করেছেন যে, সে ঋণ যেন কোনো অবৈধ কাজের জন্য- যেমন মদ কিংবা নাজায়েয প্রথা অনুষ্ঠান ইত্যাদির জন্য ব্যয় না করে। আল্লাহর পথে- সম্বলহীন মুজাহিদের…

Read more

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You Missed

কত টাকা পাবে মুস্তাফিজ এবারের আইপিএল খেলে

  • By admin
  • May 1, 2024
  • 9 views

যাকাত বন্টনের নির্ধারিত ৮টি খাত

  • By admin
  • March 20, 2024
  • 10 views

ফারুকীর হাত ধরে নাটকে অশ্লীল ভাষা শুরু হয়েছে: আবদুল্লাহ রানা

  • By admin
  • September 15, 2023
  • 9 views
ফারুকীর হাত ধরে নাটকে অশ্লীল ভাষা শুরু হয়েছে: আবদুল্লাহ রানা

Shop Tab

  • By admin
  • September 8, 2023
  • 5 views
Shop Tab

Low back pain (LBP) 0704

  • By admin
  • September 6, 2023
  • 7 views
Low back pain (LBP) 0704

Brac bank career 2023 attractive salary

  • By admin
  • September 6, 2023
  • 5 views
Brac bank career 2023 attractive salary